কুষ্টিয়ার খোকসায় বিয়ের প্রলোভনে কলেজ ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ

সুমাইয়া আক্তার শিখা, স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুষ্টিয়া খোকসা উপজেলার একতারপুর ইউনিয়নের কলেজ ছাত্রীকে ৪ বছর ধরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করে হামলার শিকার হয়েছে ঐ কলেজ ছাত্রী। ভিকটিমের সাথে কথা বলে জানা যায়, ৪ বছর পূর্বে খোকসা উপজেলার খোকসা ইউনিয়নের চড়পাড়া গ্রামের আমু বিশ্বাসের ছেলে বাপ্পির সাথে (ছদ্মনাম) সকিনা প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। প্রেম চলাকালীন সময়ে কলেজ ছাত্রী (ছদ্মনাম) সকিনা বাপ্পীর সাথে বিভিন্ন জায়গায় ও বন্ধুদের বাড়িতে ঘুরতে যায়। আর এই সকল সময়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দিনের পর দিন শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে লম্পট বাপ্পী। কিন্তু দিন যত যেতে থাকে লম্পট বাপ্পী (ছদ্মনাম) সকিনাকে এড়িয়ে চলতে শুরু করে।

(ছদ্মনাম) সকিনা বিয়ের চাপ দিলে লম্পট বাপ্পীকে তাকে বিয়ে করতে রাজী হয় না। বিভিন্ন তালবাহানা শুরু করে সময় ক্ষেপন করতে থাকে। এক পর্যায়ে (ছদ্মনাম) সকিনা বিয়ের দাবীতে প্রেমিক বাপ্পীর বাড়িতে অবস্থান নেয়। কিন্তু প্রেমিক বাপ্পী সহ তার বাড়ির লোকজন কোনভাবেই (ছদ্মানাম) সকিনাকে মেনে নেয় না।

উল্টো প্রেমিক বাপ্পী ও তার বাড়ির লোকজন (ছদ্মানাম) সকিনার উপর হামলা চালিয়ে জখম করে। জখম অবস্থায় (ছদ্মানাম) সকিনা প্রেমিক বাপ্পীর বাড়ির উঠানেই অবস্থান করে। লম্পট বাপ্পী ও তার পরিবার কোনোভাবেই (ছদ্মনাম) সকিনাকে তাদের বাড়ি থেকে বের করতে না পারায়, অর্থ দিয়ে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী খোকসা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক বাপ্পী বিশ্বাস রাজু ও তার সহযোগীরা মিলে (ছদ্মনাম) সকিনাকে নির্যাতন করে হাত পা বেধে তার নিজ বাড়িতে পৌছে দেওয়া সহ (ছদ্মনাম) সকিনার পরিবারকে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করে। এ সময় এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী খোকসা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক বাপ্পী বিশ্বাস রাজু সকিনার পরিবারকে বলে ।

এ বিষয় নিয়ে কোনো মামলা বা বিচার শালিস ডাকলে তোর পরিবারকে গ্রাম ছাড়া করা হবে এবং হত্যার হুমকি প্রদান করে। এ বিষয়ে লম্পট বাপ্পীর সাথে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে ধর্ষণের সহযোগী ও নির্যাতনকারী এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী খোকসা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক বাপ্পী বিশ্বাস রাজু সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে জানিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হবিবুর রহমান বলেন, এ বিষয়টি আমি শুনেছি। ঘটনাটি সম্পূর্ণ সত্য। ভুক্তভোগী পরিবারকে আইনের সহযোগিতার নেওয়ার পরামর্শ প্রদান করেছি। খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশিকুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হবে।